Notice :
  1. সবাইকে স্বাগতম ইসলামিক স্টরি বিডি ডটকম এ

ইসলামের দৃষ্টিতে যাদের কে বিয়ে করা জায়েজ এবং জায়েজ নয়


বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহিম

কাদেরকে বিয়ে করা হালাল আর কাদেরকে বিয়ে করা হারাম হালাল-হারাম নির্ধারণের চূড়ান্ত মালিক মহান আল্লাহই তা ঠিক করে দিয়েছেন।

[সূরা নিসার ২১, ২২ ও ২৩ ]নম্বর আয়াতে একজন পুরুষের জন্য কাদেরকে বিয়ে করা হারাম তা লিপিবদ্ধ করে দিয়েছেন।

সে অনুযায়ী যাদেরকে বিয়ে করা যাবে না তারা হলেন।
১/ পিতা পিতামহ ও মাতামহের স্ত্রী
২/মা
৩/কন্যা
৪/বোন
৫/ফুফু
৬/খালা
৭/ভাতিজী
৮/ভাগিনী
৯/দুধ মা
১০/দুধ বোন
১১/শ্বাশুড়ী
১২/সৎ বোন
১৩/পুত্রের স্ত্রী
১৪/দুই বোনকে একত্রে
১৫/সধবা মহিলা
১৬/ মুমিন পুরুষ ও নারীর জন্য মোশরেক নারী ও পুরুষ
১৭/ মুমিন পুরুষ ও নারীর জন্য ব্যভিচারী নারী ও পুরুষ
১৮/ হাদিস থেকে দেখা যায় ফুফু ভাইজি এবং খালা বোনঝিকে একত্রে বিয়ে দিয়া হারাম
১৯/ এমনিভাবে মুতা বিয়ে অর্থাৎ সাময়িকভাবে বিয়ে করা হারাম করা হয়েছে। ইসলামের প্রথম যুগে কোন সফরে গিয়ে সাময়িকভাবে কোন মহিলাকে বিয়ে করা জায়েজ করা হয়েছিল। পরবর্তী সময়ে এরূপ বিয়ে হারাম করা হয়েছে।

 

কাদেরকে বিয়ে করা যাবেঃ

কোন কোন জিনিস বিবেচনা করে বিয়ে করতে হবে সে সম্পর্কে হাদিসে বিস্তারিত বলা হয়েছে। আমরা সে সব হাদিস উল্লেখ করব। তবে আল্লাহ তাআলা কাদেরকে বিয়ে করা হালাল করেছে তা প্রথমেই জেনে নিতে হবে। এব্যাপারে মূল কথা আল্লাহ তায়ালা যাদেরকে বিয়ে করা হারাম করেছেন তারা ছাড়া সকল পুরুষ মহিলা মধ্যে বিয়ে জায়েজ————

তোমাদের জন্য হালাল করা হলো সতী-সাধ্বী মু’মিনা নারী দেরকে এবং তোমাদের পূর্বে কার আহলে-কিতাবের সতী-সাধ্বী নারীদেরকে যখন তোমরা তাদের প্রাপ্য মোহর প্রধান করো এবং তোমরা না কর প্রকাশ্য ব্যাভিচার অথবা গোপন প্রণয়।

[সূরা মায়েদাঃ৫]

বিয়ের ব্যাপারে কোনো কোনো ইসলামী শাস্ত্রবিদ ফুফু বা সমতার কথা বলেছেন এ ব্যাপারে স্বাধীন পুরুষের জন্য স্বাধীন নারী দাস পুরুষের জন্য দাসী নারী বিবেচনায় আসতে পারে মুমিন পুরুষের জন্য ব্যাভিচারী ও অপবিত্র নারী বিয়ে করা নিষেধ করা হয়েছে।

আল্লাহ তা’আলা বলেনঃ

ঈমান না আনা পর্যন্ত তোমরা কোন মুশরেক নারীকে বিয়ে করোনা। মুমিনা দাসী মুশরেক নারী থেকে উত্তম যদিও তারা তোমাদের নিকট আকর্ষণীয় হয়। মোমেনা নারীরা যেন মুশরেক পুরুষকে বিয়ে না করে, যতক্ষণ না তারা ঈমান আনে, মুমিন দাস মুশরেক পুরুষের থেকে উত্তম যদিও তারা তোমাদের নিকট আকর্ষণীয় হয়।

[সূরা বাকারাঃ২২১]

Please Share This Post in Your Social Media

© 2020 islamicstorybd.com