Notice :
  1. সবাইকে স্বাগতম ইসলামিক স্টরি বিডি ডটকম এ

এলেম শিক্ষা করা উদ্দেশ্য কি ও কেন


দুনিয়ার জন্য দ্বীনি এলেম শিক্ষা করা

দ্বীনী কাজ যখন দুনিয়ার অর্জনের জন্য হয় অথবা মানুষকে দেখানো উদ্দেশ্য হয় তখন তা অত্যন্ত ক্ষতিকর কারণ হয়ে দাঁড়ায়। পোলাও-বিরিয়ানি যেমনভাবে উন্নতমানের খাদ্য তবে একটু নষ্ট হয়ে গেলে তা আর খাওয়া উপযুক্ত থাকে না।

খেলেও মারাত্মক ক্ষতিকর কারণ হয়ে দাঁড়ায়। তেমনি নেক আমল অতি উত্তম কাজ। কিন্তু লোক দেখানো বা অন্য কোনো উদ্দেশ্যে হলে তা উল্টো ক্ষতির কারণ হয়। যেমন মিশকাতশরীফে  তিন ব্যক্তি সম্পর্কে বর্ণিত আছে।

এক ব্যক্তি তিনি এলেম তথা কুরআন শিক্ষা করেছে কিন্তু তার নিয়ত ছিল যে লোকে তাকে আলিম বা ক্বারী বলবে।তার সুনাম হবে। দ্বিতীয় ব্যক্তি ধন-সম্পদের মালিক হয়ে তা আল্লাহর পথে খরচ করেছে।

কিন্তু তার নিয়্যাত ছিল লোকেরা তাকে দানবীর সমাজসেবক বলবে। তৃতীয় ব্যক্তি তার জানমাল নিয়ে আল্লাহর রাহে যুদ্ধ করতে গিয়ে শাহাদাত বরণ করেছে কিন্তু তার নিয়্যাত ছিল  লোকেরা তাকে বীর-যোদ্ধা বলবে।

পক্ষান্তরে এলেম শিক্ষা করা সাদকা করা ও জিহাদ করা পণ্যের কাজ। এতে কোন সন্দেহ নেই। তবে প্রয়োজন ছিল একমাত্র আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য করা.

কিন্তু যখন আল্লাহর সন্তুষ্টির নিয়ত না করে মানুষকে দেখানোর জন্য নিয়ত করেছে তাই কিয়ামতের দিবসে উক্ত ব্যক্তিকে মিথ্যাবাদী আখ্যায়িত করে ।

দুচোখে যাওয়ার সিদ্ধান্ত দেওয়া হবে। তাই আল্লাহর সন্তুষ্টি বাদ দিয়ে যারা পার্থিব লোভের মোহে  পড়ে এ দ্বীনী এলেম অর্জন করে। তাদের অশুভ পরিণাম হাদীস শরীফে বর্ণিত হয়েছে।

রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেন যে ব্যক্তি দ্বীনী ইলম যা দ্বারা আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জন করা হয় শুধুমাত্র এ নিয়্যাতেই শিক্ষা করেছে যে।সে তা দ্বারা দুনিয়া অর্জন করবে। তাহলে কিয়ামতের দিন সে বেহেশতে সুগন্ধি পাবেনা

মিশকাতঃ৩৪

অথচ সে ইকলাসের স সাথে যে এলেম শিক্ষা করবে সে বেহেশত হতে পাঁচশত বছর দূরে থেকেই বেহেশতের সুগন্ধি পাবে। অন্যত্র ইরশাদ হয়েছে যে ব্যক্তি কুরআন শিক্ষা করে তা দ্বারা একমাত্র দুনিয়া অর্জনে লিপ্ত হবে হাশরের ময়দানে সে গোষ্ঠ বিহীন চেহারা নিয়ে উঠবে।

আরো পড়ুন

দুনিয়াতে বড় বড় বিপদ মানুষের গোনাহের কারণে আসে তাই কোন কোন আলেম বলেন, যে ব্যক্তি কোন গোনাহ্ করে, সে সারা বিশ্বের মানুষ, চতুস্পদ জন্তু ও পশু পক্ষীদের প্রতি অবিচার করে।

কারণ, তার গোনাহের কারণে অনাবৃষ্টি ও অন্য যেসব বিপদাপদ দুনিয়াতে আসে, তাতে সব প্রাণীই ক্ষতিগ্রস্ত হয়। তাই কিয়ামতের দিন এরা সবাই গোনাহ্গার ব্যক্তির বিরুদ্ধে অভিযোগ করবে।

Please Share This Post in Your Social Media

© 2020 islamicstorybd.com