Notice :
  1. সবাইকে স্বাগতম ইসলামিক স্টরি বিডি ডটকম এ

2020 সালের রমজানের ক্যালেন্ডার/১৪৪১হিজরী


 

 

ইংরেজী তারিখ

 

 

হিজরি তারিখ

 

 

 

বার

 

 

২৫-এপ্রিল-২০২০ ১-রমজান-১৪৪১ শনি
২৬-এপ্রিল-২০২০ ২-রমজান-১৪৪১ রবি
২৭-এপ্রিল-২০২০ ৩-রমজান-১৪৪১ সোম
২৮-এপ্রিল-২০২০ ৪-রমজান-১৪৪১ মঙ্গল
২9-এপ্রিল-২০২০ ৫-রমজান-১৪৪১ বুধ
30-এপ্রিল-২০২০ ৬-রমজান-১৪৪১ বৃহস্পতি
১-মে-২০২০ ৭-রমজান-১৪৪১ শুক্র
২-মে-২০২০ ৮-রমজান-১৪৪১ শনি
৩-মে-২০২০ ৯-রমজান-১৪৪১ রবি
৪-মে-২০২০ ১০-রমজান-১৪৪১ সোম
৫-মে-২০২০ ১১-রমজান-১৪৪১ মঙ্গল
৬-মে-২০২০ ১২-রমজান-১৪৪১ বুধ
৭-মে-২০২০ ১৩-রমজান-১৪৪১ বৃহস্পতি
৮-মে-২০২০ ১৪-রমজান-১৪৪১ শুক্র
৯-মে-২০২০ ১৫-রমজান-১৪৪১ শনি
১০-মে-২০২০ ১৬-রমজান-১৪৪১ রবি
১১-মে-২০২০ ১৭-রমজান-১৪৪১ সোম
১২-মে-২০২০ ১৮-রমজান-১৪৪১ মঙ্গল
১৩-মে-২০২০ ১৯-রমজান-১৪৪১ বুধ
১৪-মে-২০২০ ২০-রমজান-১৪৪১ বৃহস্পতি
১৫-মে-২০২০ ২১-রমজান-১৪৪১ শুক্র
১৬-মে-২০২০ ২২-রমজান-১৪৪১ শনি
১৭-মে-২০২০ ২৩-রমজান-১৪৪১ রবি
১৮-মে-২০২০ ২৪-রমজান-১৪৪১ সোম
১৯-মে-২০২০ ২৫-রমজান-১৪৪১ মঙ্গল
২০-মে-২০২০ ২৬-রমজান-১৪৪১ বুধ
২১-মে-২০২০ ২৭-রমজান-১৪৪১ বৃহস্পতি
২২-মে-২০২০ ২৮-রমজান-১৪৪১ শুক্র
২৩-মে-২০২০ ২৯-রমজান-১৪৪১ শনি
২৪-মে-২০২০ ৩০-রমজান-১৪৪১ রবি

 

রোজার আভিধানিক ও পারিভাষিক অর্থ

সওম বা রোজার আবিধানিক অর্থ বিরত থাকা। শরীয়তের দৃষ্টিতে রোজা বলা হয় সুবহে সাদিক থেকে সূর্যাস্ত পর্যন্ত রোজার নিয়তে পানাহার ও স্ত্রী সহবাস থেকে বিরত থাকা।

[আত-তারীফাতুল ফেকহিয়্যাহঃ ৩৫৫,] [আলমগীরীঃ১/১৯৪]

রোজার প্রকারভেদ


১| ফরজঃ রমজান শরীফের আদা ও কাজা রোজা। [শামীঃ২/৩৭৩]

২|ওয়াজিবঃকাফ্ ফারা ও মানতের রোজা।
[শামীঃ২/৩৭৪,হেদায়াঃ১/২১১]

৩|সুন্নাতঃ আরাফার দিন অর্থাৎ জিলহজের ৯তারিখের রোজা। আশুরার দিন অর্থাৎ মহররমের ১০তারিখের রোজা। তবে এর সাথে মিলিয়ে পূর্বে অথবা পরে আর একটি রোজা রাখা মুস্তাহাব।
[শামীঃ২/৩৮৪,উমরাতুল ফেকাহঃ৩/১৮৩]

৪|মুস্তাহাবঃ #আইয়ামে বীজ অর্থাৎ প্রত্যেক চন্দ্র মাসের ১৩,১৪,ও১৫ তারিখের রোজা। #৬ রোজা অর্থাৎ শাওয়াল মাসের যেকোনো তারিখে ৬টি রোজা
#জিলহজ্ব মাসের প্রথম তারিখ থেকে ৮ তারিখ পর্যন্তের রোজা।
# প্রতি সোমবার, বৃহস্পতিবার ও শুক্রবারের রোজা।
[ইলাউস সুনানঃ৯/১৭০,শামীঃ২/৩৭৫]

৫| মাকরূহে তাহরীমীঃ দুই ঈদের দিন ও কোরবানী ঈদের পর ১১,১২,ও ১৩ তারিখ সহ মোট ৫ দিনের রোজা।
[শামীঃ২/৩৭৬]

৬| মাকরুহে তানজিহীঃ শুধু শনিবার বা শুধু রবিবার তদ্রুপ শুধু মহররমের দশ তারিখের রোজা।
[মারাকিল ফালাহঃ২৫১,শামীঃ২/৩৭৬]

বি.দ্র. এখানে রোজার প্রসিদ্ধ প্রকার সমূহ উল্লেখ করা হয়েছে তবে এ বিষয়ে বিস্তারিত জানার জন্য ফাতাওয়ায়ে শামী, মারাকিল ফালাহ, উমদাদুল ফিকহসহ অন্যান্য ফতোয়ার কিতাব দেখা যেতে পারে।

 

ইফতার করানোর ফযীলত


হাদীস শরীফে বর্ণিত আছে যে- হযরত সালমান ফারসী (র:) থেকে বর্ণিত তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, যে ব্যক্তি রমযান মাসে কোন রোযাদারকে ইফতার করাবে তা তার গুনাহ সমূহের ক্ষমা স্বরূপ এবং দোজখের আগুন হতে মুক্তির কারণ হবে। তার সওয়াব হবে সেই রোযাদার বেক্তির সমান, অথচ রোযাদারের সওয়াব কম হবে না।

[মিশকাত- ১৭৩]

হযরত সালমান ফারসী (র:) থেকে বর্ণিত তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, যে ব্যক্তি কোন রোযাদারকে তার হালাল উপার্জন থেকে ইফতার করাবে, ফেরেস্তাগণ তার জন্য রমযানের প্রতি রাতে মাগফেরাতের দোয়া করবে এবং লাইলাতুল কদরে জিব্রাইল ( আ:) তার সাথে মুসিফাহা করবে।আর যার সাথে জিব্রাইল (আ:) মুসাফাহা করবে (আল্লাহ তায়ালার ভয়ে) তার ক্রন্দন বেড়ে যাবে ও তার অন্তর নরম হয়ে যাবে।

Please Share This Post in Your Social Media

© 2020 islamicstorybd.com